জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের বক্তব্য আর্কাইভ করা হবে

0
60

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, জীবিত মুক্তিযোদ্ধাদের বক্তব্য ২০ মিনিট করে রেকর্ড করা হবে যা আর্কাইভে রাখা হবে। তিনি বলেন, প্রতি মুক্তিযোদ্ধাকে দুইটা করে স্মার্ট কার্ড দেওয়া হবে। বড় কার্ড বাসায় থাকবে, আরেকটা ছোট কার্ড সঙ্গে রাখবে, তার মধ্যে সুবিধাগুলো লেখা থাকবে।

শনিবার বিকেল ৫টায় মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স উদ্বোধন শেষে আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের যেখানে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে যুদ্ধ হয়েছে, সে স্থানগুলোয় স্মৃতিস্তম্ভ বানানো হবে। পাঠ্যবইয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের পাশাপাশি পাকিস্তানি হানাদার ও রাজাকারদের ইতিহাস তুলে ধরতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা বিনামূল্যে দেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুকে যারা প্রত্যক্ষভাবে খুন করেছে তাদের বিচার হয়েছে, কিন্তু যারা পরোক্ষভাবে জড়িত তাদের বিচারও করা দরকার।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা। সঞ্চালনায় ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নজরুল ইসলাম। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন মুন্সীগঞ্জ ২ আসনের সাংসদ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি।

আরো উপস্থিত ছিলেন সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদ, সাবেক সচিব সামসুল হক, শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার যুদ্ধকালীন কমান্ডার আলী আহমেদ বাচ্চু, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তানবীর মোহাম্মদ আজিম, সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আবুল কাশেম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম সোহরাব হোসেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য গিয়াস উদ্দিন ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার আবদুল মতিন হাওলাদার।

মন্তব্য করুনঃ

আপনার মন্তব্যটি করুন
দয়া করে এখানে আপনার নামটি প্রদান করুন